ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৩-চার্জার ফ্যান কাজের পদ্ধতি

আসসালামুয়ালাইকুম প্রিয় বন্ধুরা, আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করব ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত। ওয়ালটন হচ্ছে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ইলেক্ট্রনিক্স কোম্পানিদের মধ্যে অন্যতম একটি কোম্পানি।

বাংলাদেশে ফ্যানের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এ ফ্যান তৈরিতে বাংলাদেশে রয়েছে অনেক স্বনামধন্য কোম্পানিগুলো যাদের মধ্যে একটি কোম্পানির নাম হচ্ছে Walton। Walton অনেকগুলো নতুন নতুন ফ্যান তৈরী করে থাকে।

Read More : গাজী পাম্প ১ ঘোড়া দাম কত ২০২৩? 1HP Gazi Water Pump Price

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম 2024

ওয়াল্টন ব্রানডার ৩ সাইজের চার্জার ফ্যানগুলির সাইজসহ দাম হলো-

  1. ওয়াল্টন ১২ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের দাম – ৩,৯৯০৳
  2. ওয়াল্টন ১৪ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের দাম – ৪,৩৯০৳
  3. ওয়াল্টন ১৭ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের দাম – ৫,৭০০৳

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের সম্পূর্ণ তথ্যাবলী

প্রিয় বন্ধুরা ওয়াল্টন বিভিন্ন সাইজের চার্জার ফ্যান তৈরী করে থাকে। আজকে আমি আপনাদেরকে ওয়ালটনের বহুল প্রচলিত ৩ রকম সাইজের চার্জার ফ্যান সম্পর্কে ধারণা দিব এবং এদের দাম সম্পর্কে আলোচনা করবো। 

বাজারে ওয়াল্টন ব্র্যান্ডের ৩ সাইজের ফ্যান সচরাচর পাওয়া যায়। এগুলো হলো ওয়াল্টন ১২ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানওয়াল্টন ১৪ ইঞ্চি চার্জার ফ্যান এবং ওয়াল্টন ১৭ ইঞ্চি চার্জার ফ্যান। নিচে এই ৩ সাইজের ফ্যান নিয়ে আলোচনা করবো। 

ওয়াল্টন ১২ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের স্পেসিফিকেশন

এটি হলো ওয়ালটনের সবচেয়ে ছোট সাইজের একটি চার্জার ফ্যান।  এর বাতাস মোটামোটি অনেক ভালো। লোড শেডিং-এর সময়ে এ ফ্যান গুলো অনেক উপকার করে থাকে। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে। 

ওয়াল্টন ১২ ইঞ্চি ফ্যানের টেকনিক্যাল ইনফরমেশন –

  • মডেল : WRTF 12A
  • ব্যাটারি : ৬ ভোল্ট/৭ এম্পিয়ার
  • উচ্চ গতিতে চলবে : ৪ ঘন্টা (প্রায়)
  • মধ্য গতিতে চলবে : ৬ ঘন্টা (প্রায়)
  • নিম্ন গতিতে চলবে : ১০ ঘন্টা (প্রায়)
  • এলইডি লাইট : ১৫০ ঘন্টা (প্রায়)    
  • ওয়ারেন্টি : ৬ মাস

(মেইড ইন বাংলাদেশ)

Read More : ভিভো 4 64 দাম কত ২০২৪? ২০ টি ভিভো মোবাইলের দামের তালিকা

ওয়াল্টন ১৪ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের স্পেসিফিকেশন

এটি হলো ওয়ালটনের মাঝারি সাইজের একটি চার্জার ফ্যান। এর বাতাস ১২ ইঞ্চি ফ্যানের তুলনায় বেশি। লোড শেডিং-এর সময়ে এ ফ্যান গুলো অনেক উপকার করে থাকে। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে। 

ওয়াল্টন ১৪ ইঞ্চি ফ্যানের টেকনিক্যাল ইনফরমেশন – 

  • মডেল : WRTF 14A
  • ব্যাটারি : ৬ ভোল্ট/৭ এম্পিয়ার 
  • উচ্চ গতিতে চলবে : ৩ ঘন্টা (প্রায়)
  • মধ্য গতিতে চলবে : ৫ ঘন্টা (প্রায়)
  • নিম্ন গতিতে চলবে : ৮ ঘন্টা (প্রায়)
  • এলইডি লাইট : ১৫০ ঘন্টা (প্রায়)
  • ওয়ারেন্টি : ৬ মাস

(মেইড ইন বাংলাদেশ)

ওয়াল্টন ১৭ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের স্পেসিফিকেশন

এটি হলো ওয়ালটনের বড় সাইজের একটি চার্জার ফ্যান। এর বাতাস ১২ ইঞ্চি ও ১৪ ইঞ্চি ফ্যানের তুলনায় অনেক বেশি। লোড শেডিং-এর সময়ে এ ফ্যান গুলো অনেক উপকার করে থাকে। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে। 

ওয়াল্টন ১৭ ইঞ্চি ফ্যানের টেকনিক্যাল ইনফরমেশন –

  • মডেল : W170A/EM
  • ব্যাটারি : ১২ ভোল্ট/৪.৫ এম্পিয়ার 
  • উচ্চ গতিতে চলবে : ৩ ঘন্টা (প্রায়)
  • লো গতিতে চলবে : ৬ ঘন্টা (প্রায়)
  • ন্যাচারাল গতিতে চলবে : ৩.৫ ঘন্টা (প্রায়)
  • এলইডি লাইট : ৯০ ঘন্টা (প্রায়)
  • ওয়ারেন্টি : ৬ মাস

(মেইড ইন বাংলাদেশ)

Read More : বাংলাদেশে Vivo Y21 এর দাম | বিবু Y21 এর RAM & ROM রিভিউসহ

চার্জার ফ্যান কিভাবে কাজ করে?

চার্জার ফ্যান– নাম শুনেই হয়তো বুঝতে পারছেন যে এটি চার্জ দিয়ে চলে। আসলে প্রত্যেকটি চার্জার ফ্যানের ভিতরে রিচার্জ করার ব্যাটারি থাকে। আপনি যখন এই ফ্যানগুলো চালু করবেন তখন কোনো বিদ্যুৎ-সংযোগের দরকার পরে না। 

এই ফ্যানের মধ্যে থাকা বেটারী আপনার ফ্যানকে বিদ্যুৎ প্রদান করে থাকে। যার সাহায্যে এই চার্জার ফ্যান চলে। এরপর যখন ব্যাটারির মধ্যে থাকা বিদ্যুৎ অর্থাৎ চার্জ শেষ হয়ে যায় তখন এটি আর চলে না। 

তখন সে ব্যাটারিকে বিদ্যুতের বা চার্জার দরকার পরে। ফ্যানের সাথে আপনাকে একটা চার্জার দেয়া হয় সে চার্জারটি আপনি ফ্যানের সাথে সংযোগ করে আপনার বাড়িতে থাকা বিদ্যুতের কানেকশনের লাগিয়ে ব্যাটারিকে চার্জ করবেন। 

ব্যাটারি ভালোভাবে চার্জ হয়ে গেলে আপনি পুনরায় ফ্যানটি ব্যবহার করতে পারবেন। এই ফ্যানগুলো গরমের দিনে অনেক কাজে আসে। যাদের বাড়িতে রোগী, বৃদ্ধ, শিশু থাকে বা যাদের গরম বেশি লাগে তাদের জন্য এ ফ্যানগুলি অনেক আরামদায়ক। 

আমাদের দেশে গ্রীষ্মকালে বা গরমের দিনে লোড শেডিং দেখা দেয়। অর্থাৎ কারেন্ট চলে যায়।  দিনে অনেক ঘন্টা কারেন্ট থাকেনা তখন আপনার বাড়িতে থাকা রোগী, বৃদ্ধ বা শিশুদের গরমে অনেক কষ্ট হয়। এ ফ্যান ব্যবহার করে কারেন্ট থাক বা না থাক আপনার বাতাসের ব্যবস্থা ঠিক থাকবে।

সতর্কতা

চার্জার ফ্যানের ব্যাটারি নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। এর পিছনে প্রধান কারণ হচ্ছে চার্জার ফ্যানের ব্যাটারি যথারীতিতে চার্জ না করা। দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাটারীতে চার্জ না থাকার কারণে ব্যাটারি ডেড হয়ে যায়। অনেক সময় এই ব্যাটারির পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয় না।

যার কারণে নতুন ব্যাটারি কেনার জন্য বাড়তি টাকা খরচ করতে হয়। তাই চার্জার ফ্যানের ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে গেলেই এর মধ্যে চার্জ দিয়ে রাখতে হবে। অথবা যদি শীতকাল চলে আসে। আর আপনি এখন চার্জার ফ্যান ব্যবহার করছেন না।

তবুও চার্জার ফ্যানটি কয়েকদিন পরপর বের করে চার্জ দিয়ে রাখুন। এতে ব্যাটারি সচল থাকবে এবং নষ্ট হওয়ার প্রবণতা অনেক কমে যাবে। আমরা এই ভুলটি অনেক বেশি করে থাকি যে শীতকালে চার্জার ফ্যানটি সেভাবেই রেখে দেয়। ফলে ব্যবহার না হওয়া এবং চার্জ না দেওয়ার কারণে ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যায়।

Read More : বাংলাদেশে ভিভো Y20 দাম কত । এর RAM & ROM সম্পূর্ণ রিভিউসহ

Conclusion

আমি উপরে তিন সাইজের ও তিন মডেলের ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম আলোচনা করেছি। সাথে ফ্যানগুলোর ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করেছি। আশা করছি এই তথ্যগুলো আপনার উপকারে আসবে।

আপনি যখন ওয়ালটন চার্জার ফ্যান কিনতে যাবেন এগুলো আপনার সহায়ক হবে। তবে মনে রাখবেন মার্কেটে ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট এর দাম সর্বসময় ওঠানামা করে। যার কারণে হতে পারে আমি যে দাম দিয়েছি মার্কেটে এ দামের কিছুটা বেশি দাম বা কম দাম পেতে পারেন।

তবে এটা তেমন একটা চিন্তার বিষয় নয়। কারণ এই দামের মধ্যে বেশি তফাৎ থাকে না। কিন্তু আপনি যদি প্রোডাক্টের সর্বশেষ আপডেট জানতে চান। তাহলে আপনার পার্শ্ববর্তী কোন ওয়ালটনের শোরুম কিংবা ওয়ালটনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে সে প্রোডাক্ট এর সর্বশেষ মূল্য জেনে নিতে পারেন।

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম সম্পর্কে কোন কিছু জানার বা বলার থাকলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।

 

By AzimAdmin

Hi, I am a professional Blogger & SEO Expert. I am working on this field since 2019. I've a huge experience in my profession. I also worked on so many projects and websites.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *